শুভ পুরাদমে প্রেম শুরু

টারনেট থিকাই মিটে তবু প্রিন্টেড মেটেরিয়াল দেখতে যে মজা মনিটরের আলোতে সেইটা নাই।
খাইয়া দাইয়া উপ্রে আইসা টিভি দেখতেছি আর পাতা উল্টাইতেছি। সারাদিনের গরমে চিলাকোঠায় সিদ্ধ হইয়া যাওয়ার দশা। নিরুপায় হইয়া ছাদে গেলাম। প্রফ নিয়া চিন্তিত। এখনো আগের রেজাল্ট দেয় নাই, সাপ্লি খাইয়া গেলে খবর আছে। টুকটাক কথা বলতেছি শুভ কইয়া উঠলো, চুপ চুপ, নীচে দেখ। পাশের বিল্ডিঙের তিনতলায় নজর গেল। হালকা আলো জ্বলতেছে ভিতরে, একটা মাইয়া লোক ….যতদুর বুঝা যায় ল্যাংটা হইয়া বাথরুমে ধোয়াধুয়ি করতেছে। তারপর মহিলাটা পাশের রুমে গেল, এই রুমেও হালকা আলো, তবে মহিলাটা ল্যাংটা কনফার্ম, দুধ দুইটা ঝুলতেছে খোলা অবস্থায়। আমরা পজিশন নিয়া দাড়াইলাম। ঢাকা শহরে অনেক কিছু দেখছি, কিন্তু রাত এগারোটার সময় বাসাবাড়ীতে উলঙ্গ নারীদেহের ঘোরাঘুরি চোখে পড়ে নাই। নাফিসগো ছাদে কোমরসমান দেয়াল দেওয়া। দেওয়ালের আড়ালে বইসা গেলাম, জাস্ট চোখ দুইটা বাইরে। একটা লোকও আছে মনে হয় খাটে শোয়া। মহিলাটা আর লোকটা কথা বলতেছে। সেক্স শুরু হইবো মনে কইরা আমরা তিনজনই

ওই পরব শেষ হতেই অনেক রাত হয়ে

আমি যখন ক্লাশ সেভেন থেকে এইটে উঠলাম তখন স্কুল বন্ধের মদ্ধ্যে কুচবিহারে বড়দির বাড়ি যাবার সিদ্ধান্ত হোল। মা, ছোড়দি, বড়দা আর আমি। পঞ্জিকা দেখে বাবা দিন ঠিক করে দিলো। আমরা সুভ লগ্নে বেরিয়ে পরলাম। সেখানে পৌছতে বেশ রাত হয়েছিল। দিদিতো আমাদের দেখে কি যে খুশি তা আর বলে বোঝানো সম্ভব নয়। একবার মাকে জড়িয়ে ধরে আবার ছোড়দিকে আবার আমাকে ধরে কান্না। আনন্দের বন্যা বয়ে গেল। জামাই বাবু ধমকে উঠলেন কি ব্যাপার ওদের চান খাবারের জোগার করবে নাকি হাউ মাউ করলেই চলবে।
জামাই বাবুর এক বৌদি আছে সেখানে দাদা চাকরিতে বদলি হয়ে দিল্লি গেছে তিন মাস আগে। সেই বৌদি এগিয়ে এসে বলল আহা ঠাকুরপো তুমি অমন করোনাতো আমি দেখছি কত দিন পরে বেচারি মা ভাই বোনদের পেয়েছে অমনতো হবেই আমি

সে ভাবী হিসাবে অনেক কাছে পাবে

পলাশ ঐ ঠোঁট দেখেই পছন্দ করে ছিল প্রিয়াকে। কি আছে ঐ ঠোঁটে? একজোড়া অতি সাধারণ ঠোঁট। অন্যান্য মেয়েদের যেমনটি থাকে তেমনি। আহামরি ধরণের কিছু নয়। তাহলে পলাশ কি আবিস্কার করলো ঐ ঠোঁটের মাঝে। রীনা ভাবীতো বলেই ফেললেন -’মেয়েটির ঠোঁটটির জন্যই একটু খারাপ লাগছে। তাছাড়া শরীরের গড়ন, রং, হাইট ইত্যাদি বেশ পছন্দসই।’ পলাশের সাথে একচোট ঠান্ডা কথা কাটাকাটিও হয়ে গেল। পলাশ ভাবীর কানের কাছে মুখ নিয়ে বলে-’আসলে মেয়েটির ঐ ঠোঁটের জন্যই ওর সবকিছু এতো সুন্দর।’
রীনা ভাবী আরও কিছু বলতে চাইছিল কিন্তু পলাশ ভাবীর সাথে তর্ক করতে চায় না। শুধু বলে -’ভাবী আপনি আমার চোখ দিয়ে একটিবার ওকে দেখুন, তবেই বুঝতে পারবেন ঐ ঠোঁটে কি আছে।’

মালিশ করতে ব্যথা কমে যাবে

তখনকার কথা যখন আমি বি,বি,এ পাস করে বের হওয়া একটা টগবগে যুবক আর এম,বি,এতে ভর্তি হওয়ার অপেক্ষায় ছিলাম। এই বয়সী ছেলে হলে যেমন হয় আর কি আমিও ঠিক তেমনি ছিলাম। বন্ধুদের সাথে আড্ডা মারা, ব্লুফিল্ম দেখা আরো অনেক কিছু। ব্লুফিল্ম দেখে দেখে হাত মেরে মাল ফেলাও শুরু করি।
আর যখন থেকে চোদা কি জিনিস বুঝতে শিখেছি তখন থেকে শুধু আমার বড় ভাবীকে দেখে চোদার কথা ভেবে ভেবে মাল ফেলি। আমার বড় এক ভাই আর আমি। যে ঘটনাটা বলতে যাচ্ছি তা আমার বড় ভাবীকে নিয়ে। বড় ভাই বিরেয়ে ক ২০০৩ সালে, আর ভাইয়া বিয়ে করে, আমার ভাবীর পরিবারের সবাই মিরপুরেতেই থাকে। আর বিয়ে দেয়া হয় একই জেলাতে মানে ঢাকাতে। আমি যখন ভাবীর প্রতি দুর্বলতা অনুভব করি তখন তার বয়স ২৩ বছর, বিয়ের পর ভাবীর শরীরটা হঠাৎ করে বেড়ে যায় আর বেড়ে যাওয়ার কারণে ভাবীকে আগের চেয়ে আরো বেশি সুন্দর

পরিবারের সব কাজ কর্ম মাষ্টারদার পরামর্শ

মা-বাবা আমাদের লেখা পড়া করানোর জন্য একজন মাষ্টার রাখলেন। মাষ্টারের নাম আলাউদ্দিন। মাষ্টারদা তখন আমাদের স্থানীয় কলেজে ইন্টারে পড়তেন। আমি তখন সেভেনে এবং আমার ভাই ফাইভে পড়ত। আমরা মাষ্টারদা কে দাদা বলে সম্বোধন করতাম। মাষ্টার-দা ও আমাদের কে ভাই বোনের মতনাম ধরে ডাকত। আমাকে আরজু আর আমার ভাইকে জাহাঙ্গীর বলে ডাকত।
মাষ্টারদা লেখা পড়ায় খুব ভাল ছিল। আমাদেরকে ভাল বুঝিয়ে বুঝিয়ে পড়াতেন। আমাদেরলেখা পড়া এবং স্কুলের পাঠ যতক্ষন না শেষ হত ততক্ষন নিজের পড়া পড়তেন না। আমাদের ছুটি দিয়ে তারপর তিনি নিজের পাঠে মনযোগ দিতেন। মাষ্টার-দার বদৌলতেই আমি ভাল্ ভাবে পাশ করে সেবার সেভেন হতে এইটে উঠলাম। আর আমার